This Site is under constructing !!!

Recents

Latest Posts

root android device

- Thursday, July 28, 2016 No Comments
root android device your android device ????
is it possible to to root easy way?
yes i think so. because at present root process is very easy..... so lets start.

so how to root your android?

first prosess and it only for samsung device:

in samsung device root process is different.

first you need 2 zip file for rooting your samsung. 
so google to find . first write root samsung model.
suppose you are using a device samsung 5362.
so you need to search root samsung 5362. then download the two zip file .

switch off your phone. press volume up+home+power at the same time.you can see there is a option custom recovery. ....................................

আপনার এযান্ড্রয়েড ডিভাইসকে রুট করুন সবচেয়ে সহজ উপায়ে

- Sunday, July 17, 2016 No Comments
পৃথিবীর সবচেয়ে সহজ উপায়ে রুট করুন আপনার android phone

এখানে সেই সকল রুট নিয়েই আমরা কথা বলেছি যেই সকল রুট পদ্ধতি একেবারেই কার্যকর।







প্রথম পদ্ধতি বা eroot প্রসেসঃ







অবশ্যই আগে এন্টিভাইরাস ডিসেবল করে নিবেন। তাইলে eroot ফাইলটাকে ডিলিট করে দিতে পারে। তবে ভয়ের কিছু নেই। এটা ভাইরাস ফাইল না।

প্রথমে আপনার মোবাইলটি usb cable দিয়ে পিসিতে কানেক্ট করুন। এবার usb dabugging অন করে দিন।usb dabugging অন করার জন্য প্রথমে আপনার মোবাইলের সেটিং setting>About Phone>এবার build number এ কমপক্ষে ১০ বার ক্লিক করুন। আবারো Setting >Developer Option>USB Dabugging এ মার্ক করুন।এবার adbdriver install দিন। install দেয়ার সময় install anyway দিয়ে ইন্সটল দিবেন।এরপর আপনার eroot open করুন। পিসিতে আগে থেকে antivirus কিছুক্ষনের জন্য disable করে দেয়া ভালো। কারন কিছু কিছু antivirus eroot কে ভাইরাস হিসেভে চিহ্নিত করে।eroot ওপেন হলে Root এ ক্লিক করুন। কয়েক সেকেন্ড কপেক্ষা করুন। দেখবেন আপনার ফোন রুট হয়ে গেছে।



ডাউনলোড লিঙ্ক










দ্বিতীয় পদ্দতি vroot প্রসেস:







ওয়ালটনসহ promo h3 সহ বেশ কিছু ফোনে eroot কাজ করবে না। সেই ক্ষেত্রে আপনাকে vroot ব্যবহার করতে হবে।। রুট করার আগের eroot এর মত । আগে usb dabugging অন করে adb driver install দিতে হবে। তারপর vroot install দিয়ে ফোন রুট করতে হবে।



ডাউনলোড লিঙ্ক





এবার আসি যে সকল এ্যাপলিকেশন বা পিসির সাহায্য ছারাই রুট করা সম্ভব হয়েছে।আর প্রয়োজনীয় অ্যাপলিকেশনগুলো গুগল সার্চ বা বিভিন্ন মার্কেট যেমনঃ play store/1mobile/mobogonia/mobo market/yandex market যেকোন একটি থেকে সংগ্রহ করে নিতে পারেন।









তৃতীয় পদ্ধতি এবং এটি শুধু স্যামসাং ডিভাইসে রুটঃ





সামসাং ডিভাইসগুলোর ক্ষেত্রে উপরের একটা পদ্ধতিও কাজ করবে না। কারন সামসাং এর রুট প্রসেস ভিন্ন। সামসাং ডিভাইসগুলোর জন্য একটা আপডেট জিপ ফাইল পাওয়া যায়। প্রথমে আপনাকে জিপ ফাইলটি গুগল থেকে ডাউনলোড দিতে হবে। আপনার ফোনের জন্য ওই আপডেট ফাইলটি পাওয়ার জন্য গুগলে এভাবে সার্চ দিন।" root samsug galaxy 5362" . এখানে আপনার ফোনের মডেলটি দিন। দেখবেন ওই মডেলের ফোনের রুট করার জন্য অনেক ইংরেজি পোস্টের লিঙ্ক চলে এসেছে। সেখানের যেকোন একটি পোস্টে ঢুকে আপনার সেটের সেই আপডেট ফাইলটি সংগ্রহ করুন।এবার সেই জিপ ফাইলটি আপনার এসডি কার্ডের বাহিরে রাখতে হবে।এবার আপনার ফোনটি অফ করুন এবং ভলিওম আপ+হোম বাটম+পাওয়ার বাটন চেপে ধরুন। কিছুক্ষনের মধ্যেই আপনার ফোনের রিকভার মুড আসবে। সেখানে নিচের দিকে install zip from sd card লেখা আছে। এবার আপনার জিপ ফাইলটি দেখিয়ে দিন। এবং yes করুন। এবার go back করুন এবং reboot now করুন। আপনার এ্যাপলিকেশনগুলো চেক করে দেখুন।একটি অ্যাপলিকেশন superuser নামে এ্যাড হয়ে গেছে। আপনার ফোনটি সফলভাবে রুট হয়েছে।









চতুর্থ পদ্ধতিঃ




আপনি চাইলে framaroot.apk দিয়ে সবচেয়ে সহজ উপায়ে আপনার ফোন রুট করতে পারেন। বেশিভাগ Android ফোনে এই পদ্ধতিতে রুট করা সম্ভব।

প্রথমে framaroot ডাউনলোড দিন।framaroot ওপেন করলেই SuperSU নামে একটা অপশন দেখতে পাবেন। সেটি সিলেক্ট করে boomir এ ক্লিক করুন। কিছুক্ষন অপেক্ষা করুন। আপনার ফোনে superuser install হলে ফোন রিবট করুন। দেখবেন ফোণ রুট হয়ে গেছে। একইভাবে ফোন আনরুট করতে framaroot ওপেন করে unroot select করুন এবং boomir এ ক্লিক করুন। দেখবেন আপনার ফোণ আনরুট হয়ে গেছে।




ডাউনলোড লিঙ্ক









পঞ্চম পদ্ধতিঃ




root master.apk দিয়ে ওয়াল্টন প্রিমোর অনেক ব্রান্ডের ফোন সহ অনেক চাইনিস ব্রান্ডের ফোনকেই রুট করা সম্ভব হয়েছে।






ষষ্ঠ পদ্ধতিঃ


আশার কথা হল কিটক্যাটসহ বেশ কিছু ডিভাইসকে kingroot.apk দিয়ে রুট করা সম্ভব হয়েছে। তাই চাইলে আপনি kingroot দিয়ে অনায়সে আপনার ফোনটাকে রুট করতে পাবেন।

রুটের ভ্রান্ত ধারনা ও সুবিধা

- No Comments

রুট !!!!!!
অনেকের কাছেই একটি ভয়ের নাম। যাই হোক এই জায়গাতে আমি একটি গল্প বলব। সেটিও সবাই মনযোগ দিয়ে পড়বেন।
রুটঃ
রুট শঝের অর্থ শিকর। রট শঝটি এসেছে মূলত লিনাক্সের ধারনা থেকে। তবে কম্পিউটারে লিনাক্স অপারেটিং সিস্টাম যেমনঃ উবুন্টু , কুবুন্টু , জুবুন্টু, লিনাক্স মিন্ট , ব্যাকট্রাক ৫, কালি লিনাক্স এগুলোতে রুট পারমিশন পাওয়ার জন্য আলাদা কোণ অ্যাপলিকেশন যোগ করতে হয় না। কিন্তু এ্যান্ড্রয়েডে রোমের ক্ষেত্রে অ্যাপলিকেশন যোগ করতে হয় না ।
শুনতে অবাক লাগতে পারে আজকে আপনারা যে এ্যান্ড্রয়েড চালাচ্ছেন তা মূলত এসেছে লিনাক্সের কার্নেল থেকে।
কার্নেলঃ
এখন আপনারা হয়ত প্রস্ন করতে পারেন- এই কার্নেল ব্যাপারটা আবার কি? যাই হোক বলতে গেলে অনেক কিছুই বলা যায়। কিন্তু এখানে আমি আপনাদের একটা উদাহরন দেবো। ইনশাআল্লাহ আপনারা তাতেই বুঝে যাবেন।
আমার ভাষাতে কার্নেল হল মূল একটা কেন্দ্রবিন্দু। মনে করুন আপনি কম্পিউটারের দোকান থেকে একটা এ্যাপাচার ৩২ জিবি মেমরী কার্ড কিনে আনলেন।এখন আপনি কম্পিউটারে লাগিয়ে সেটিকে বিভিন্নভাবে ব্যবহার করতে পারেন। যেমনঃ চাইলে ভিডিও/ অডিও/ ইমেজ, আবার চাইলে সফটওয়্যারে ভর্তি করতে পারেন। আবার চাইলে সেটিকে বুটেবল করতে পারেন। চাইলে সেটিতে অভিও ভিডিও, সফটওয়্যার সবকিছুই লোড করতে পারেন। মোট কথা আপনি ইচ্ছেমত সেটিকে ব্যবহার করতে পারেন। আপনি মনে করুন আপনার ঐ পেন্ড্রাইভটাই কার্নেল। যেটাতে যা ইচ্ছে তাই যোগ করে কাজ করতে পারেন।
আবার ধরুন আপনি বাজার থেকে একটা ব্লাঙ্ক ডিভিডি ডিস্ক কিনে আনলেন। আর সেটাতে আপনার পছন্দমত ফাইল এ্যাড করে বার্ন করলেন।
এখন আমার প্রস্ন আপনি কি ভবিস্যতে এই ডিভিডি আবার নতুন করে ব্যবহার করতে পারবেন?
অবস্যই না।
ঠিক তেমনি আপনি আপনার অপারেটিং সিস্টামের কোণ পরিবর্তন করতে পাবেন না। যেমনঃ আপনি চাইলেই উইন্ডোজ সেভেন , এইট টেন, ভিস্তা,এক্সপিতে পরিবর্তন আনতে পাবেন না।
কিন্তু লিনাক্সে আপনি এই পরিবর্তন আনতে পাবেন। আর এ্যান্ড্রয়েড যেহতু লিনাক্স অপারেটিং সিস্টেম তাহলে তো চোখ বন্ধ করে পরিবর্তন আনা সম্ভব। তবে সেই পরিবর্তন আনার জন্য প্রয়োজন একটা পার্মিশনের। আমরা এই পার্মিশনকেই বলি রুট।
রুটের অসুবিধাঃ
যাই হোক আপনারা হয়ত আমার বকবকানি শুনে খুবই বোর হয়ে গেছেন। তাহলে একটা গল্প শুনাই। সবাই মনযোগ দিয়ে পড়বেন।
ছেলেটার নাম মোশারফ। ছোটবেলা থেকে খুবই লাজুক ধরনের। ছোটবেলা থেকেই ছেলেটা একটা মেয়েকে পছন্দ করে। মেয়েটার নাম ন্যান্সি। কিন্তু মোশারফ কোনদিন তার মনের কথা বলার সাহস পায় নি। তার বন্ধুরা ব্যাপারটা অনেকবার দেখেছে । তারা অনেকবার মোশারফকে ন্যান্সির কাছে মনের কথা খুলে বলার জন্য বলেছে। কিন্তু মোশারফ তা করেনি ।
মোসারফের সাথে তার ঘনিষ্ঠ বন্ধু নরেন্দ্র দেখা করে। নরেন্দ্র মোশরফকে ন্যান্সির সামনে গিয়ে মনের কথা খুলে বলার জন্য বলে।
কিন্তু মোশারফ কিভাবে বলবে?
সে তো খুবই লাজুক ধরনের । অবশেষে রাগ করে নরেন্দ্র বলে "যদি তুমি ন্যান্সিকে সামনে মনের কথা না বলো তাহলে তোমার সাথে বন্ধুত্ব রাখবো না।
কি আর করার । অবশেষে বাধ্য হয়েই মোশারফ ন্যান্সির সামনে তার মনের কথা খুলে বলে। আর ন্যান্সিও তাকে জানায় সেও মোশারফকে ভালবাসত। দুজনেই একে অপরের মোবাইল নাম্বার নেয়। দুজনের মধ্যে নিয়মিত দেখা হয়। তাছারা মোবাইলে তো অবস্যই কথা হয়।
একদিন ন্যান্সির ছোট ভাই কামাল তাদের দুইজনকে দেখে। সে মোশারফকে তাদের বাবা – মা এর সাথে পরিচয় করিয়ে দেয়।ন্যান্সির বাবা মার সাথে মোশারফের খুব ভালো সম্পর্ক গড়ে উঠে। কারন মোশারফ শিক্ষিত ছেলে। তাছারা ভাল একটা চাকুরিও করে। তাই তার বাবা মার কোন আপতি থাকে না।
মাঝে মাঝে তাদের মাঝে ছোটখাট বিসয় নিয়ে দ্বন্দ হয়। কিন্তু মোশারফ খুব চালাক ধরনের। তাই তাদের মাঝে ছোটখাট সমস্যা হলেই সে ন্যান্সিকে চকলেট,চুইনগাম , আইস্ক্রিম কিনে দেয়। এছারাও যখন একেবারে বেশি সমস্যা হয় তখন মোশরফ একটি লাল গোলাপ নিয়ে ন্যান্সির সামনে গিয়ে হাজির হয়। কি আর করার । ন্যান্সিও তাতেই খুশি হয়ে যায়। তার সকল অভিমান ভেঞ্জে যায়।
একদিন ন্যান্সির সাথে মোশারফের খুবই কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে দেখা যায় তাদের রিলেশনশিপ একেবারে ব্রেকাপ হয়ে যায়।
এভাবে প্রায় অনেক দিন কেটে যায়। ন্যান্সির মা ন্যান্সিকে জিজ্ঞাসা করে কি হয়েছে?
অবশেষে ন্যান্সি সব কথা খুলে বলে। এদিকে মোশরফ কস্টে ফাঁসি দিবে এমন অবস্থা। এমন সময় ন্যান্সির মা মোশারফকে ফোন করে। যাই হোক অহেতুক মৃত্যুর হাত থেকে মোশারফ বেঁচে যায়।
গল্প থেকে মূল বিসয়ঃ
১. ছোটবেলা থেকে খুবই লাজুক ধরনের। মানে মোশারফের মত কিছু জনগন ফোন রুট করতে ভয় পায়।
২. সে ন্যান্সিকে প্রতিদিনই দেখে। মানে অনেকই প্রতিদিনই গুগল নিয়ে এইসব বিসয় ঘাটাঘাটি করে।
৩. তার বন্ধুরা ব্যাপারটা দেখে। এখানে বন্ধুদের বলতে মূলত গুগলকে বুঝানো হয়েছে। আর নরেন্দ্র হল আমাদের জিপি ফ্রী নেট গ্রুপ। আর নরেন্দ্র মোশারফকে ন্যান্সিকে তার মনের কথা বলার জন্য বাধ্য করে। মানে বুঝতেই পারছেন আমরাই তারা যারা আপনাকে আপনার ফোন রুট করার জন্য বাধ্য করাচ্ছি।
৪. বাধ্য হয়েই মোশারফ ন্যান্সির সামনে তার মনের কথা খুলে বলে। আর ন্যান্সিও তাকে জানায় সেও মোশারফকে ভালবাসত। মানে মেয়েটা হল জিঞ্জারব্রেড বা আইস্ক্রিম বা জেলিবেন ভার্সনের। তাই সহজের framaroot দিয়ে ডিভাইসটিকে রুট করা সম্ভব হয়েছে। আর কিছু মেয়েকে দেখবেন যাদের পিছনে কিছু ছেলে ঘুরতেই থাকে। কিন্তু মেয়েগুলো মাণে না। এরা হল কিটক্যাট ভার্সনের মেয়ে। মানে কোনভাবেই পায়া দেয়। না। অবস্য কিছু ছেলে হাল মানে না। অবশেসে মেনে নেন। মানে kingroot , voot, rootmaster দিয়ে রুট করে ফেলে।
আর কিছু মেয়ে আছে যারা শেস পর্যন্ত ওইসব ছেলেকে পায়া দেয় না। মানে আপনার ওই কিটক্যাট ভার্সনের ঐ ফোন যতই চেস্টা করুন সেটা রুট হবার নয়।
৫. একদিন ন্যান্সির ছোট ভাই কামাল তাদের দুইজনকে দেখে।এখানে কামাল মানে cwm/ctr/twrp recovery.img মানে আপনি আপনার ডিভাইসের recovery.img ফাইলটি খুজে পায়েছেন। আর কামাল যেহতু মোশারফকে বাসায় নিয়ে গিয়ে তার বাবা মার সাথে পরিচয় করিয়ে দিয়েছে , সেহতু বলাই যায় আপনি আপনার android ডিভাইস mobile uncle tools.apk বা recovery tools.apk দিয়ে আপনার ফোনের জন্য রিকভার ফ্ল্যাশ দিয়েছেন।
৬. বাবা – মা এর সাথে পরিচয় করিয়ে দিলে মোশারফের খুব ভালো সম্পর্ক গড়ে উঠে। এখানে আপনি আপনার ফোনের রোম ব্যাকাপ রেখেছেন।
৭. ছোটখাট দ্বন্দ হলে মোশারফ ন্যান্সিকে চকলেট, চুইনগাম , আইস্ক্রিম আর বেশি সমস্যা হলে গোলাপ ফুল। এখানে আপনার ফোনের যাবতীয় application titanium backup দ্বারা ব্যাকাপের কথা বলা হয়েছে। আর এখানে ছোট সমস্যাগুলো হল ইউজার এ্যাপ। আর গোলাপ ফুল হল সিস্টাম এ্যাপ। তাই যেহতু ব্যাকাপ করাই আছে তাই রিস্টোর করলেই সমস্যা সমাধান।
৮. এক পর্যায়ে দেখা যায় তাদের রিলেশনশিপ একেবারে ব্রেকয়াপ হয়ে যায়। মানে কোন কারনে আপনার রোম ব্রিক করেছে।
৯. এদিকে মোশরফ কস্টে ফাঁসি দিবে এমন অবস্থা। এমন সময় ন্যান্সির মা মোশারফকে ফোন করে।এখানে ফাঁসি বলতে হার্ড ব্রিকের কথা বলা হয়েছে।আর ন্যান্সির মা হল এখানে ব্যাকাপ রোম। তাই রিস্টোর করে আপনার ফোণ ফিরিয়ে আনা হল।
১০. মোশারফ ফাঁসি দিচ্ছিল । এমন অবস্থা। এমন সময় ন্যান্সির মায়ের ফোনের কারনে আপনি আপনার ফোন ফিরে পেলেন।
আপনাকে অভিনন্দন! আপনার ফোন আগের অবস্থাতে ফিরে এসেছে।
রুটের সুবিধাঃ
১. ফোনের এদ্মিন হতে পাবেন।
২. ফোনের ইন্টারন্যাল মেমরী বাড়াতে পাবেন।
৩. ফোনে কাস্টম রোম চালাতে পাবনে
৪. ফোনের কিছু বাজে সিস্টাম এ্যাপ আনইন্সটল করে দিতে পাবেন।
৫. কোণ ইউজার এ্যাপকে সিস্টাম এ্যাপ বানাতে পাবেন।
৬. ফোন গতিশীল করতে পাবেন।
৭. ফোনে কিছু দরকারী এ্যাপ যেমনঃ rom maneger,gravity box, xblast , granity , link2sd, font installer , rom toolbox,quick boot ইত্যাদি ব্যবহার করতে পারবেন।
৮. আপনার ফোনের ব্যাক বাটন বা মেমু বাটন নস্ট হলে গ্রাভিটিবক্স দিয়ে স্ক্রিণে এসব বাটন এ্যাড দিতে পাবেন।
৯. চাইলে আপনি নোটিফিকেসনের অপশন এ্যাড, রিমুভ বা পরিবর্তন করতে পাবেন।
১০. সিস্টাম স্টোরেজের কিছু জায়গা আপনি মেমরী কার্ড হিসেবে ব্যবহার করতে পাবেন।
১১.ফোনের সিস্টাম রিংটোন , ওয়ালপেপার রিপ্লেস করে নিজের ইচ্ছেমত রিংটোন , ওয়ালপেপার চেঞ্চ করতে পারবেন।
১২. আপনার ফোন্য আপনি নিজেই recovery.img বানাতে পাববেন।
১৩. সম্পুর্ন রোমের ব্যাকাপ রাখতে পাবেন।
১৪. সকল সিস্টাম এ্যাপ ব্যাকাপ রাখতে পাবেন।
১৫. ড্রয়েড টুলসের মত পিসির কিছু টুলস আছে যেগুল ব্যবহার করার জন্য আপনাকে অবস্যই আপনার ফোনের রুট করতে হবে।
১৬. রিকভার রোমের ব্যাকাপ থেকে আপনি আপনার ফোনের কাস্টম রম বাণাতে পাবেন।
১৭.সেটিং মেনুতে আপনি আপনার পছন্দমত ছবি দিতে পাবেন।
১৮.ফোনে ক্যাচ , ডেলভিক ক্যাচ এর এ্যাডভান্স লেভেলের ক্লিনিং করার জন্য আবস্যই ফোন রুট করতে হবে।
১৯. যেকোন সিস্টাম ফোল্ডারের পরিবর্তন করার জন্য পার্মিশন নিতে পাবেন।
২০. এক কথাতে আপনি আগের চেয়ে অনেক কম্ফোরটেবল ভাবে আপনার ফোনটি ব্যবহার করতে পারবেন।
আমার এই পোস্টটি পড়ার পর আপনার যদি আপনার এ্যান্ড্রয়েড ফোনের রুট করার ইচ্ছা হয় তাহলে আপনার ফোন রুট করে দেখতে পারেন ।

new

- Saturday, July 16, 2016 No Comments

কাস্টোম রোম ফ্ল্যাশ

- No Comments
আপনার অ্যান্ড্রয়েডে কাস্টম রোম ফ্ল্যাশ করার জন্য প্রথমেই আপনার ফোনকে রুট করতে হবে। যদি আপনার ফোন রুট করা না থাকে তাহলে এই পোস্ট দেখুন এবং ফোন রুট করে ফেলুন।
এবার আপনার ফোনের জন্য রিকভারী ফ্লাস করতে হবে সাধারনত যারা অ্যান্ড্রয়েড চালায় তারা তিন ধরনের রিকভারী ফ্ল্যাশ ব্যবহার করে। CWM recevery, CT recovrry এবং TWRP recovery এর মদ্ধে TWRP recovery চাট সাপর্ট করে কিন্তু CWM recovery ও CT recovery টাচ সাপর্ট করে না।আর একটা বিসয় সবাইকে জানিয়ে দিচ্ছি CWM recovery ও CT recovery এই দুইটা রিকভারীর মধ্যে তেমন কোন পার্থক্য নেই। প্রায় একই।
তাই প্রথমে আপনাকে গুগল থেকে আপনার ফোনের জন্য recovery.img ফাইলটি ডাউনলোড দিতে হবে। গুগল থেকে আপনার ফোনের রিকভারী পাওয়ার জন্য এভাবে সার্চ দিন। recovery.img for w68 । w68 এর জন্য জায়গাতে আপনি আপনার সেটের মডেলটি দিন। তবে বাপারটা এমন না যে আপনি গুগল থেকে সরাসরি recovery.img ফাইলটি পেয়ে যাবেন।
হয়ত লেখা থাকবে TWRP recovery.zip/ cwm reocvery.zip/CT recovery.zip/TWRP recovery.img/CWM recovery.img/CT recovery.img .সহজ কথা যদি ফাইলটি zip ফর্মেটে থাকে তাহলে unzip করে নিতে হবে।
একইভাবে আপনার ফোনের কাস্টম রোম সার্চ দিন ,এভাবে--- best custom rom for w68 অথবা custom rom of w68 । দরকার অনুসারে আপনার ফোনের কাস্টম রোম ডাউনলোড দিন। তবে আমি আপনাদের সাজেস্ট করবো কমপক্ষে দুইটা কাস্টম রোম ডাউনলোড করতে। কারন বেশিভাগ ক্ষেত্রে দেখা যায় অনেক কাস্টম রোমে বাগ থাকে। তাই ফ্ল্যাশ মারার পর অনেক সমস্যা দেখা যায়।
আপনার ফোনের recovery.img ও কাস্টম রোম ডাউনলোড হয়ে গেলে সেটি ফাইল দুটিকে sd card এর বাহিরে রাখুন। এখানে আমি আপনাদের রিকভারী মুড ফ্ল্যাশ করার দুইটা পদ্ধতির কথা বলবো।
প্রথম পদ্ধতি বা mobile uncle tools.apk প্রসেসঃ
প্রথমে আপনি mobile uncle tools.apk ডাউনলোড দিন।
এবার সেটি ওপেন করুন এবং superuser পারমিশন দিন। Recovery Update এ ক্লিক করলে দেখবেন আপনার ফোনের recovery.img ফাইলটি সো করছে। এবার সেটিকে সিলেক্ট করুন। দেখবেন কিছুক্ষন ফোন হ্যাং হয়ে আছে। ভয় পাবেন না। কিছুক্ষনের মধ্যে আপনার ফোনে একটা অপশন আসবে যেটিটে আপনাকে বলা হবে reboot into recovery mood? cancel করে দিন।
দ্বিতীয় পদ্ধতি recovery tools.apk প্রসেসঃ
প্রথমে recovery tools.apk ওপেন করুন। প্রযোজনীয় superuser permission লাগলে দিয়ে নিবেন। এবার flash Recovery তে ক্লিক করুন।other from storeg থেকে আপনার recovery.img ফাইলটি সিলেক্ট করুন। সিলেক্ট করার পর দেখবেন একটা অপশন আসবে choosing your recovery name.img
Are you sure? ( yes please করে দিন।কয়েক সেকেন্ড সময় লাগবে। অপক্ষা করুন। দেখবেন আরেকটা অপশন আসবে Reboot in to recovery now? No , thanks দিন।
যারা samsung ডিভাইস চালান তাদের জন্যঃ
রিকভারী মুড ফ্ল্যাশ করার জন্য আপনাকে আপনার রিকভারী ফাইলটি গুগল থেকে ডাউনলোড দিতে হবে। এরপর ফাইলটি SD কার্ড এর বাহিরে রেখে ফোন অফ করতে হবে। এবার ভলিউম আপ+ পাওয়ার বাটন চেপে রিকভারী মুডে প্রবেশ করতে হবে। এবার আপনাকে যখন রিকভারী মুড আসবে
তখন একটা অপশন আসবে install zip from sd card সিলেক্ট করে আপনার রিকভারী ফাইলটি দেখিয়ে ফোন ফ্ল্যাশ মারতে হবে। তাহলেই রিকভারী মুড আপনার ফোনে ইন্সটল হয়ে যাবে।
এবার আপনার ফোনটিকে অফ করুন এবং volume up+power button চেপে রিকভারী মুডে প্রবেশ করুন।
কাস্টম রোম ফ্ল্যাশ যারা TWRP recovery flash করেছেন তাদের জন্যঃ
১. দূর্ঘটনা এড়ানোর জন্য প্রথমে রোম ব্যাকআপ করতে হবে। এর জন্য আপনাকে> Backup থেকে boot, data, system মার্ক করে swipe to back up করে বলের মত রেখাটি বাম থেকে ডানে টানুন। ব্যাকআপ শেস হলে ব্যাক করে wipe এ যান বলের মত রেখাটি বাম থেকে ডানে টানুন। এবার advance wipe এ যান। সেখানে Delvic cache ,Cache , Data ,Android secure,System মার্ক করে রেখাটি বাম থেকে ডানে টানুন।
২. এবার ব্যাক হয়ে install এ ক্লিক করুন। আর আপনার রোমটি সিলেক্ট করে ফ্ল্যাশ করুন। যদি দেখছেন কোন ফ্ল্যাশ হচ্ছে না তবে backup থেকে আপনার রোমটি রিস্টোর করুন। আর যদি আপনার রোমটি সঠিকভাবে ইন্সটল হয় তবে ফোন রিবুট হবে এওবং অন হতে একটু সময় লাগবে। এমনকি ১০ মিনিটও লেগে যেতে পারে।
আর যারা cwm অথবা CT recovery flash দিয়েছেন তাদের জন্যঃ
দূর্ঘটনা এড়ানোর জন্য প্রথমে রোম ব্যাকআপ করতে হবে। এর জন্য আপনাকে> Backup and restore> backupসিলেক্ট করুন। চাইলে backup to internal sd card সিলেক্ট করতে পারেন। দেখবেন আপনার ফোনের রোম ব্যাকআপ হচ্ছে। ব্যাকআপ কমপ্লিট হলে go back থেকে wipe cache partition > Yes Wipe Cache > Go Back> mounts and storage>formet /system> Yes-Formet সিলেক্ট করুন।> Go Back>advanced>wipe Delvic Cache>Yes-W ipe Delvic Cache> Wipe Bettery States>Yes-Wipe Bettery States>Go Back>Go back>install Zip from SD card> এবার আপনার rom সিলেক্ট করে ফ্ল্যাশ মারুন। ফ্ল্যাশ মারা শেস হলে ফোন রিবুট করবে। সর্ব্বচ্চ ১০ মিনিটও লেগে যেতে পারে। আর যদি দেখেন সমস্যা হচ্ছে তাহলে আপনার ব্যাকআপ রোম রিস্টোর করুন।
আমাদের গ্রুপের অফিসিয়াল ফ্যানপেজ

Title post !!

- Friday, July 15, 2016 No Comments
This is a title post !!! Title .....................
This is a title post !!! Title .................... Image can say something ! 
                     

This is title

Star pac

- Thursday, June 23, 2016 No Comments
njhdklgulrmvblkxcgvdskfgb;dfh kv bdkjfgdjklhnlksd dgfkjdsgjkf mngkujdgsblkfcbas ,mdbfjsdgbal. HDSFOGIHALKFD MSDFBKJSDBF.KF;LDJ;S lkflsdkfnvds


Upcoming

- No Comments
Upgrading!


Purbasha

- No Comments
Upgrading !